২৫ মে ২০২৪

কক্সবাজারে বজ্রাঘাতে কিশোরসহ লবণশ্রমিকের মৃত্যু

কক্সবাজারের পেকুয়ায় বজ্রপাতে কিশোরসহ লবণশ্রমিকের মৃত্যু হয়েছে। বৃহস্পতিবার (২ মে) ভোররাতে উপজেলার মগনামা ও রাজাখালী ইউনিয়ন এলাকার লবণ মাঠে এ দুর্ঘটনা ঘটে।

নিহত দিদারুল ইসলাম (৩০) মগনামা ইউনিয়নের কোলাইল্লাদিয়া এলাকার জমির উদ্দিনের ছেলে। অপর নিহত আরাফাত হোসাইন (১৪) উপজেলার রাজাখালী ইউনিয়নের ছরিপাড়া এলাকার জামাল হোসেনের ছেলে।

নিহত দিদারের চাচা জাকের হোসাইন জানান, ভোর চারটার দিকে আকাশে মেঘ জমলে ভাতিজা দিদারকে নিয়ে আমিও লবণ তুলতে মাঠে যাই। এ সময় বৃষ্টির সাথে আচমকা বজ্রপাত ঘটলে ঘটনাস্থলেই মারাযান দিদারুল ইসলাম।

মগনামা ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) প্যানেল চেয়ারম্যান বদিউল আলম বলেন, দিদার আমার পার্শ্ববর্তী আবুল কালামের লবণ মাঠে কাজ করতো। ভোররাতে আকাশে মেঘ দেখা গেলে অন্যান্য শ্রমিকের মতই লবণ তুলতে গিয়ে বজ্রাঘাতের কবলে পড়ে। স্থানীয়রা তাকে উদ্ধার করে পেকুয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কর্মরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।

মগনামা ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান মো. ইউনুস চৌধুরী বলেন, বজ্রপাতে দিদারুল ইসলামের মৃত্যুর খবর পেয়েছি। তার পরিবারের সাথে আমার কথা হয়েছে। তাকে দাফনে প্রশাসনিক সহায়তা দেয়ার প্রচেষ্টা করা হবে।

অপর দিকে, একই সময়ে লবণ তুলতে বাবার সাথে মাঠে গিয়ে বজ্রাঘাতে মারা গেছে কিশোর ফরহাদ হোসাইন। তাকে মাঠ থেকে উদ্ধার করে বাড়িতে নিয়ে আসা হয়েছে বলে জানিয়েছেন স্থানীয় ইউপি সদস্য নুরুল আবছার বদু।

বিষয়টি ইউপি চেয়ারম্যান ও স্থানীয় প্রশাসনকে জানানো হয়েছে বলে উল্লেখ করেন তিনি।

পেকুয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি-তদন্ত) সুদীপ্ত ভট্টাচার্য বলেন, এখনো থানায় এ সংক্রান্ত তথ্য আসেনি। আমরা খোঁজ নিচ্ছি।

পেকুয়া উপজেলা নির্বাহি কর্মকর্তা (ইউএনও) সাইফুল ইসলাম জয় বলেন, দীর্ঘ সময় পর বৃহস্পতিবার ভোররাত সোয়া তিনটা হতে সাড়ে তিনটার দিকে মাঠে লবণ তুলতে গিয়ে বজ্রাঘাতে দুজন মারা গেছেন-এটা মর্মান্তিক। তাদের পরিবারকে প্রশাসনিক সহায়তা দেয়ার উদ্যোগ নেয়া হয়েছে।

আরও পড়ুন

এ সম্পর্কিত আরও

সর্বশেষ