২৫ এপ্রিল ২০২৪

শিক্ষামন্ত্রী হিসেবে শপথ নিলেন মহিবুল হাসান নওফেল

চ্যালেঞ্জ নিয়ে কাজ করব : শিক্ষামন্ত্রী নওফেল

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বাধীন আওয়ামী লীগ সরকারের নতুন মন্ত্রিসভায় পূর্ণমন্ত্রীর দায়িত্ব পেয়েছেন চট্টগ্রামের সাবেক মেয়র ও চট্টলবীর খ্যাত এবিএম মহিউদ্দীন চৌধুরীর ছেলে ব্যারিস্টার মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল।

পূর্বের মন্ত্রীসভার শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের উপমন্ত্রী থেকে পূর্ণমন্ত্রী পদোন্নতি পেয়ে একই মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রীর দায়িত্ব পেলেন চট্টগ্রাম-৯ আসনে টানা দুইবারের নির্বাচিত এ সংসদ সদস্য।

বৃহস্পতিবার (১১ জানুয়ারি) সন্ধ্যা ৭টায় প্রধানমন্ত্রীর শপথ পাঠের পর বঙ্গভবনে মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেলসহ অন্যান্য মন্ত্রীদের পূর্ণমন্ত্রীর শপথ বাক্য পাঠ করান রাষ্ট্রপতি মো. সাহাবুদ্দিন। এরপর মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব বন্টন হলে তিনি শিক্ষামন্ত্রীর দায়িত্ব পান।

মন্ত্রিত্ব পেয়ে তাৎক্ষণিক প্রতিক্রিয়ায় তিনি বাংলাধাকে বলেন, চ্যালেঞ্জ নিয়ে কাজ করব। আমার ওপর অর্পিত দায়িত্ব যথাযথভাবে পালনে সর্বাত্মক প্রচেষ্টা থাকবে। পূর্বের মন্ত্রিসভায় শিক্ষা উপমন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করেছি। সেখানেও আমার সেরাটা দিয়ে চেষ্টা করেছি। যার পুরস্কার স্বরূপ প্রধানমন্ত্রী আমাকে পূর্ণমন্ত্রীর দায়িত্ব দিয়ে সম্মানিত করেছেন।

এদিকে মন্ত্রিত্ব পাওয়ায় শুভেচ্ছা  ও অভিনন্দন জানান চসিকের প্যানেল মেয়র-১ ও ২৫ নং রামপুর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর আবদুস সবুর লিটন। এছাড়া উচ্ছ্বাস প্রকাশ করেন চট্টগ্রামের সর্বস্তরের জনসাধারণ। বিশেষ করে চট্টগ্রাম-৯ আসনের সাধারণ জনগণের মাঝে দেখা যায়, বাঁধ ভাঙা আনন্দ। ব্যারিস্টার মহিবুল হাসান নওফেল পূর্ণমন্ত্রীর দায়িত্ব পাওয়ায় তাকে অভিনন্দন জানান চট্টগ্রামের বিভিন্ন উপজেলা ও চট্টগ্রাম নগর আওয়ামী লীগ, যুবলীগ ও ছাত্রলীগের নেতা-কর্মীরা।

মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল ১৯৮৩ সালের ২৬ জুন চট্টগ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। তার পিতা চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের ৩য় মেয়র এবিএম মহিউদ্দীন চৌধুরী ও মাতা শাহেদা মহিউদ্দিন। তিনি লন্ডন স্কুল অব ইকনোমিক্স থেকে স্নাতক পাশ করে লন্ডন থেকে ব্যারিস্টারি সম্পূর্ণ করেন। এরপর শুরু করেন আইনপেশা। মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল ঢাকা বারের আইনজীবী। তিনি চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রিরও সদস্য। বেসরকারি টেলিভিশন চ্যানেল বিজয় টিভির তিনি ব্যবস্থাপনা পরিচালক।

আইনজীবী হিসেবে ক্যারিয়ার শুরু করলেও প্রয়াত চট্টলবীর খ্যাত এবিএম মহিউদ্দিন চৌধুরীর এ সুযোগ্য সন্তান রাজনীতিতেও রেখেছেন সমান অবদান। তিনি ২০১৬ সালে কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের সম্মেলনে সর্বকনিষ্ঠ সাংগঠনিক সম্পাদক মনোনীত হন। এর আগে তিনি কেন্দ্রীয় যুবলীগের সদস্য ও চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগের কার্যনির্বাহী সদস্য ছিলেন।

বাবার পদাঙ্ক অনুসরণ করা এ তরুণ তার রাজনৈতিক মেধা, প্রজ্ঞা ও জনগণের ভালোবাসায় নিজের জায়গা করে নিয়েছিলেন সংসদেও। ২০১৮ সালের একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী হিসেবে চট্টগ্রাম-৯ আসন থেকে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন তিনি। পরেরবছর ৭ জানুয়ারি তিনি বাংলাদেশের শিক্ষা উপমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব গ্রহণ করেন।

সর্বশেষ ৭ জানুয়ারির দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে একই আসন থেকে নৌকা প্রতীক নিয়ে বিপুল ভোটে দ্বিতীয়বারের মতো সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়ে ১০ জানুয়ারি শপথ গ্রহণ করেন। একই দিন রাতে পান মন্ত্রী হওয়ার ডাকও। উপমন্ত্রী থেকে পদোন্নতি পেয়ে পূর্ণমন্ত্রীর দায়িত্ব পান তিনি।

আরও পড়ুন