২৬ মে ২০২৪

দেশজুড়ে কালবৈশাখীর তান্ডবে নিহত অন্তত ১০

বাংলাধারা ডেস্ক »

জৈষ্ঠ্যের শুরুতেই কালবৈশাখীর তান্ডবে রাজধানী ঢাকাসহ সারাদেশে অন্তত ১০ জন নিহত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে। এর মধ্যে ঢাকায় ৩ জন, নওগাঁয় ৩ জন, চাঁপাইনবাবগঞ্জে ২ জন, রাজশাহী ও বগুড়ায় একজন করে  মোট ১০ নিহত হয়েছেন। 

শুক্রবার (১৭ মে) সন্ধ্যায় আকস্মিক ঝড়ে ঢাকার বায়তুল মোকাররম জাতীয় মসজিদের দক্ষিণ পাশের নামাজের প্যান্ডেল লণ্ডভণ্ড হয়ে যায়। এত এক মুসল্লির মৃত্যু হয়েছে এবং আহত হয়েছেন পুলিশসহ অন্তত ২৫ জন। নিহত শফিকুল ইসলাম (৩৬) টায়ার কারখানায় কাজ করতেন।

বায়তুল মোকাররম মসজিদের সিনিয়র পেশ ইমাম মুফতি মিজানুর রহমান জানান, রমজান মাস উপলক্ষে মসজিদের দক্ষিণ গেট এলাকার খালি জায়গায় বিশাল প্যান্ডেল তৈরি করা হয়েছিল। সেখানে রোজাদার মুসল্লিরা ইফতার ও নামাজ আদায় করেন। শুক্রবার ইফতার শেষে নামাজের প্রস্তুতির সময়ে হঠাৎ ঝড়ে প্যান্ডেলটি ভেঙে পড়ে। এতে অনেকেই নিচে চাপা পড়েন।

ফায়ার সার্ভিসের কেন্দ্রীয় নিয়ন্ত্রণ কক্ষের কর্মকর্তা রাসেল সিকদার বলেন, বায়তুল মোকাররমে দক্ষিণ গেটের প্যান্ডেল ভেঙে যাওয়ার খবরে তাদের দুটি উদ্ধারকারী দল সেখানে যায়। ফায়ার সার্ভিস কর্মীরা কয়েকজনকে উদ্ধার করে হাসপাতালে পাঠায়।

ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ পরিদর্শক মো. বাচ্চু মিয়া বলেন, রাত সাড়ে ৮টা পর্যন্ত ২৫ জন আহতকে হাসপাতালে নিয়ে আসা হয়। তাদের মধ্যে শফিক নামে একজন মারা যান। অন্য আহতদের কারও অবস্থাই গুরুতর নয়।

এছাড়া মধ্যবাড্ডায় প্রাণ সেন্টারের পাশে একটি দেয়াল ধসে তিনজন আহত হন। এর মধ্যে ২ জনকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে ও একজনকে পঙ্গু হাসপাতালে নেওয়া হয়। তবে দুজনই মারা গেছেন খবর পাওয়া গেছে।

শুক্রবার সকাল থেকেই ঢাকার আকাশ ছিল মেঘলা। রোদের সঙ্গে ছিল ভ্যাপসা গরম। সন্ধ্যা গড়াতেই হানা দেয় কালবৈশাখী। ঝড়ো হাওয়াসহ মাঝারি ধরনের বৃষ্টিপাত হয়েছে। সরকারি ছুটির দিন হওয়ায় ঝড়ো হাওয়া রাজধানীবাসীর স্বাভাবিক জীবনযাত্রায় দুর্ভোগের সৃষ্টি করেনি। বরং ভ্যাপসা গরমে অস্থির রাজধানীবাসীকে হঠাৎ বৃষ্টি স্বস্তি এনে দেয়। বৃষ্টির সঙ্গে আকস্মিক ঝড়ে রাজধানীর বিভিন্ন এলাকায় গাছ উপড়ে পড়ে। ছিঁড়ে যায় বৈদ্যুতিক তার।

আবহাওয়াবিদ আব্দুল বারেক বলেন, এ সময়টায় কালবৈশাখী ঝড় স্বাভাবিক। এ ধরনের ঝড় জ্যৈষ্ঠ মাসে আরও কয়েকটি হতে পারে।

নওগাঁয় শুক্রবার বিকেলে জেলার পোরশা উপজেলার গানোইর বিলে ধান কাটার সময় বজ্রপাতে শফিনুর (২৮) ও হাসান (৩০) নামে দুই কৃষক এবং আত্রাইয়ের হাটকালুপাড়ার জাহাঙ্গীর আলম (২০) নামে আরেকজনের মৃত্যু হয়। নিহত শফিনুর গানোইর গ্রামের আজাদ হোসেনের ছেলে ও হাসান পাশের চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলার শিবগঞ্জের মৃত মতিউর রহমানের ছেলে। জাহাঙ্গীর আত্রাই উপজেলার হাটকালুপাড়া গ্রামের খোদাবপের ছেলে।

পোরশা থানার ওসি শাহিনুর ইসলাম ও আত্রাই থানার ওসি মোবারক হোসেন ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেন।

চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদরের বালিয়াডাঙ্গা ইউনিয়নের শ্রীরামপুর মাঠে শুক্রবার বিকেলে ধান কাটার সময় বজ্রপাতে দুই কৃষকের মৃত্যু হয়। নিহতরা হলেন- শ্রীরামপুর গ্রামের মোতালেব হোসেনের ছেলে মোশাররফ হোসেন (৩৪) ও হযরত আলীর ছেলে রেজাবুল হক (৪৩)। এ সময় হযরত আলী সুজন নামে আরেক কৃষক আহত হন।

রাজশাহীর পুঠিয়া উপজেলার বানেশ্বরে শুক্রবার সন্ধ্যায় কালবৈশাখীর সময় ঘরের চালার চাপায় পড়ে নিহত হন বানেশ্বর ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান আব্দুস সোবহান সরকার (৮০)। এদিকে ঝড়ের তাণ্ডবে রাজশাহীর অনেক গাছপালা ভেঙে যায়। রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের প্যারিস রোডের অনেক গাছপালা ভেঙে পড়ে। বাগানের আম অর্ধেক ঝরে যায় বলেও চাষিরা জানান।

বগুড়া শহরতলির শ্যামবাড়িয়া এলাকায় ঝড়ে গাছচাপা পড়ে শহীদুল ইসলাম (৩০) নামে ট্রাকের এক হেলপারের মৃত্যু হয়। শহীদুল শহরের সাবগ্রাম এলাকার বাসিন্দা। তিনি ট্রাকে করে শেরপুর যাওয়ার পথে গাছ ভেঙে ট্রাকের ওপর পড়ে। এতে ঘটনাস্থলেই তার মৃত্যু হয়।

এদিকে ঝড়ের কবলে পড়ে হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে অভ্যন্তরীণ কয়েকটি ফ্লাইট জরুরি অবতরণ করে। কয়েকটি ফ্লাইটের সিডিউল পরিবর্তন করা হয়। অভ্যন্তরীণ রুটের কয়েকটি ফ্লাইট ঢাকায় অবতরণ করতে না পেরে চট্টগ্রামের শাহ আমানত আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে অবতরণ করে। এছাড়া পাবনার ভাঙ্গুড়ায় গাছ উপড়ে রেললাইনে পড়ে ঢাকার সঙ্গে উত্তর ও দক্ষিণবঙ্গের ট্রেন চলাচল বন্ধ ছিল।

বাংলাধারা/এফএস/এমআর

আরও পড়ুন