২০ মে ২০২৪

পাচারকালে বিপুল নিত্যপণ্য-ওষুধ জব্দ, গ্রেফতার ৩

রাজস্ব ফাঁকি দিয়ে সাগরপথে অবৈধভাবে পাচারকালে বিপুল পরিমাণ খাদ্যপণ্য ও নিত্য প্রয়োজনীয় পণ্য সামগ্রী এবং ঔষধ জব্দ করা হয়েছে। সোমবার (৬ মে) সন্ধ্যায় কক্সবাজার পৌরসভার উত্তর নুনিয়ারছড়াস্থ ৬নং বিআইডব্লিউটিএ জেটি ঘাট এলাকা থেকে র‌্যাব-১৫’র সদস্যরা। এসময় পাচারকাজে জড়িত অভিযোগে তিনজনকে গ্রেফতারও করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন র‌্যাব-১৫’র সিনিয়র সহকারী পরিচালক অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আবু সালাম চৌধুরী।

গ্রেফতাররা হলো— বান্দরবানের লামার আলীকদমের পূর্ব লালপাড়ার মৃত সৈয়দুল হকের ছেলে মো. হোসেন মাঝি (৪৫), কক্সবাজার পৌরসভার পেশকারপাড়ার মজিদ মৌলভীর কলোনীর মৃত আবদুল মোতালেবের ছেলে মো. ফিরোজ (৫৫) ও ময়মনসিংহের ফুলপুর রামপুরের বাহেলার বাসিন্দা আবদুল গফুরের ছেলে হাবিবুর রহমান (৫৮)। তিনি বর্তমানে কক্সবাজার পৌরসভার হাঙরপাড়ায় বাস করছেন।

অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আবু সালাম চৌধুরী বলেন, কক্সবাজারের সমুদ্রের বিভিন্ন চ্যানেল ব্যবহার করে কিছু অসাধু ব্যবসায়ী ও পাচারকারী জ্বালানী তৈলসহ বিভিন্ন নিত্য প্রয়োজনীয় ভোগ্যপণ্য ও ঔষধ সামগ্রী অবৈধভাবে চোরাচাইপথে পাশ্ববর্তী দেশে পাচার করছে। এতে সরকার কোটি কোটি টাকার রাজস্ব হারাচ্ছে সাথে দেশীয় উপরোল্লিখিত খাদ্যদ্রব্য, অকটেন, ডিজেল পাচার হওয়ায় দেশে কৃত্রিম সংকট সৃষ্টি হচ্ছে। এসব ঘটনার খবর পেয়ে গর্হিত এ অপরাধ রোধে গোয়েন্দা তৎপরতা বাড়ায়। এরপর র‌্যাব-১৫ জানতে পারে, একটি পাচারকারী চক্র কক্সবাজার সদরের পৌরসভার ২নং ওয়ার্ডের উত্তর নুনিয়ারছড়াস্থ ৬নং ঘাট (বিআইডব্লিউটিএ জেটি) পাড় সংলগ্ন বাঁকখালী নদীতে এফবি তুষার নামীয় কাঠের তৈরী ইঞ্জিন চালিত বোটে বিপুল পরিমাণ খাদ্য ও নিত্য প্রয়োজনীয় পণ্য এবং ঔষধ মজুদ করে অবৈধভাবে সমুদ্রপথে পার্শ্ববর্তী দেশে পাচারের উদ্দেশ্যে অবস্থান করছে। এমন খবরে সোমবার সন্ধ্যা ৭টার দিকে র‌্যাব-১৫, সিপিএসসি ক্যাম্পের আভিযানিক দল অভিযান চালায়। এসময় র‌্যাবের উপস্থিতি বুঝতে পেরে কৌশলে পলায়নের চেষ্টাকালে তিনজন পাচারকারীকে গ্রেফতার করা হয়।

তিনি আরো বলেন, এসময় তাদের হেফাজতে থাকা এফবি তুষার নামীয় কাঠের তৈরী ইঞ্জিন চালিত নৌকায় ১৪ হাজার পিস ডিম, ৪০০ কেজি পেঁয়াজ, ৪০০ কেজি আলু, বিভিন্ন ব্যান্ডের ৮০০ পিস ছাতা, ৩১৮ বোতল সিরাপ জাতীয় ঔষধ, ৪ হাজার ১৪৮ পিস মিনি প্যাক শ্যাম্পু জব্দ করা হয়।

জিজ্ঞাসাবাদে তারা জানায়, গ্রেফতারকৃতরা দীর্ঘদিন ধরে কক্সবাজারের বিভিন্ন স্থান হতে পাইকারি দামে নিত্য প্রয়োজনীয় পণ্য ক্রয় করে মজুদের পর রাজস্ব ফাঁকি দিয়ে অবৈধভাবে পাচার করে। উদ্ধারকৃত আলামতসহ গ্রেফতারকৃতদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণে তাদের কক্সবাজার সদর থানায় সোপর্দ করা হয়েছে বলে উল্লেখ করেন আবু সালাম চৌধুরী।

আরও পড়ুন

এ সম্পর্কিত আরও

সর্বশেষ