২৩ মে ২০২৪

বিএনপি এখন অদৃশ্য শক্তির ওপর নির্ভর হয়ে পড়ছে: পররাষ্ট্রমন্ত্রী

পররাষ্ট্রমন্ত্রী

নির্বাচন মিস্ করে বিএনপি এখন অদৃশ্য শক্তির উপর বিশ্বাস করা শুরু করে বলে মন্তব্য করেছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ এমপি। চতুর্থবারের মতো নির্বাচিত হয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে অত্যন্ত পরিচ্ছন্ন ভাবে দেশ চালাচ্ছেন। দেশরত্ন শেখ হাসিনার চতুর্থবাবের জয়কে সাধুবাদ জানিয়েছে যুক্তরাষ্ট্রসহ বন্ধুপ্রতীম সকল রাষ্ট্র। সরকারের সাথে চলমান সম্পর্ককে আরো দৃঢ় করতে পরশু বাংলাদেশে আসছেন ডোনাল্ড রুল, এমনটি জানিয়েছেন পররাষ্ট্র মন্ত্রী।

রোববার (১২ মে) বিকেলে কক্সবাজার শরণার্থী ত্রাণ ও প্রত্যাবাসন কমিশনার কার্যালয়ের নিচে সাংবাদিকদের সাথে ব্রিফিংকালে তিনি এসব কথা বলেন। পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটির দ্বিতীয় সভা উপলক্ষে তিনি এদিন বিকেলে কক্সবাজারে এসেই বৈঠকের আগে সাংবাদিকদের সাথে কথা বলেন।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী আরো বলেন, মিয়ানমারে যুগ যুগ ধরেই সংঘাত চলমান। রাখাইনে আরাকান আর্মির সাথে চলমান সংঘাতকে ইস্যু করে বাংলাদেশে আশ্রিত রোহিঙ্গাদের প্রত্যাবাসনে দীর্ঘসূত্রিতার ইঙ্গিত আসছে। তবে, আমাদের প্রচেষ্টা অব্যাহত রাখতে সরকারের সাথে যোগাযোগ নিয়মিত রয়েছে।

ড. হাছান মাহমুদ বলেন, রোহিঙ্গাদের কারণে আমাদের সবদিকেই সমস্যা হচ্ছে। তবে, উখিয়া-টেকনাফের ৩৩টি আশ্রয় ক্যাম্প সীমান্ত থেকে দূরে হওয়ায় রাখাইনের সংঘাতের প্রভাব এখানে পড়ছে না। সব ধরণের সন্ত্রাসী কর্মকান্ড কঠোর হাতে দমন করা হচ্ছে। এরপরও অন্যদেশের বোঝা আমরা দীর্ঘদিন মাথায় নিয়ে থাকতে পারি না। এদের নিয়মতান্ত্রিক পন্থায় প্রত্যাবাসনে প্রচেষ্টা অব্যহত রয়েছে।

পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটির দ্বিতীয় সভা উপলক্ষে কক্সবাজারে অবস্থান করছে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সকল সদস্য। সভায় বসার আগে রোহিঙ্গা ক্যাম্প পরিদর্শন করছেন স্থায়ী কমিটির সভাপতি ড. এ.কে আব্দুল মোমেন, নাহিম রাজ্জাক, নুরুল ইসলাম নাহিদ, হাবিবুর রহমান ও জাতীয় সংসদের হুইপ সাইমুম সারওয়ার কমল এবং পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের উর্ধ্বতন কর্মকর্তারা।

রবিবার সকালে ক্যাম্প-৫ সিআইসি অফিসে সাধারণ রোহিঙ্গাদের সাথে মতবিনিময়ে মিলিত হন তারা। পরে কমিটির সদস্যরা ক্যাম্পের বিভিন্ন কার্যক্রম পরিদর্শন করেন।

দুদিনের সফরে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি, সদস্য ও কমিটির উর্ধ্বতন কর্মকর্তারা শনিবার (১১ মে) সন্ধ্যা ৬টায় বিমানযোগে কক্সবাজার আসেন। সিডিউল মতে রোববার (১২ মে) সকালে কমিটির সদস্যরা কক্সবাজারে বিভিন্ন উন্নয়নমূলক কার্যক্রম পরিদর্শনে বের হন। এরপর সকাল ১০টায় তারা ক্যাম্পে গিয়ে জাতিসংঘের সংস্থা ডাব্লিউএফপি, আইওএমসহ বিভিন্ন সংস্থার কার্যক্রম দেখেন। এসময় ক্যাম্প-৫ এর সিআইসি অফিসের কনফারেন্স রুমে রোহিঙ্গা প্রতিনিধিদের সাথে মতবিনিময়, ঘুমধুমের নতুন ট্রানজিট ক্যাম্প, ১৮ নম্বর ক্যাম্পে রোহিঙ্গা কালচারাল মেমোরি সেন্টার, কুতুপালং সিআইসি অফিস পরিদর্শন করেন। বেলা ২টা দিকে রোহিঙ্গা ক্যাম্প থেকে কক্সবাজার ফিরবেন তারা।

এরপর স্থায়ী কমিটির সভাপতি, সদস্য ও কমিটির উর্ধ্বতন কর্মকর্তারা বিকেলে খুরুস্কুল আশ্রায়ণ ও বায়ু বিদ্যুৎ প্রকল্প পরিদর্শন করে বিকেল ৫ টায় শরনার্থী ত্রাণ ও প্রত্যাবাসন অফিসারের কার্যালয়ের সেমিনার কক্ষে আরআরআরসি’র প্রতিনিধি, রোহিঙ্গা শরনার্থী ক্যাম্পে কর্মরত জাতিসংঘের বিভিন্ন সংস্থার প্রতিনিধি, এনজিও, আইএনজিও এর প্রতিনিধি, জেলা প্রশাসকের প্রতিনিধি, নিরাপত্তা রক্ষাকারী বাহিনীর প্রতিনিধিদের সাথে যৌথ সভায় মিলিত হন।

এসভার পর একই সেমিনার কক্ষে দ্বাদশ জাতীয় সংসদের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির দ্বিতীয় সভা শেষে কমিটির সকলে সন্ধ্যায় সড়কপথে চট্টগ্রামের উদ্দেশ্যে রওয়ানা দেবেন।

সূত্র মতে, সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভায় রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন সহ বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেয়া হতে পারে।

কমিটির সদস্য পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ, মো. জাহিদ আহসান রাসেল, নিজাম উদ্দিন জলিলসহ অন্যরাও এতে অংশ নিচ্ছেন।

আরও পড়ুন