২২ মে ২০২৪

রমজানে সক্রিয় ছিনতাইকারী চক্র, নগরজুড়ে পৃথক অভিযানে অস্ত্রসহ গ্রেফতার ১০

বাংলাধারা প্রতিবেদন »

ঈদকে সামনে রেখে সক্রিয় হয়েছে এসব ছিনতাইকারী চক্র। শপিং করতে আসা মানুষকে টার্গেট করে টাকা ও জিনিসপত্র ছিনিয়ে নেওয়ার জন্য সুযোগের অপেক্ষায় থাকে তারা। ছিনতাইসহ অপরাধমূলক কর্মকাণ্ড ঠেকাতে সক্রিয় রয়েছে পুলিশও। মঙ্গলবার (২৮ মে) দিবাগত রাতে নগরীর কোতোয়ালী, বায়েজীদ বোস্তামি, সদরঘাট থানা পুলিশ ও
চট্টগ্রাম মহানগর গোয়েন্দা (উত্তর) বিভাগের সদস্যরা বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালিয়ে অন্তত ১০ জন ছিনতাইকারীকে আটক করেছে।

নগরীর কোতোয়ালী থানাধীন নতুন রেল স্টেশন সংলগ্ন গণশৌচাগারের সামনে থেকে ছুরিসহ ৪ ছিনতাইকারীকে গ্রেফতার করেছে কোতোয়ালী থানা পুলিশ। গ্রেফতারা হলো- মো. সাইফুল ইসলাম সুমন (৩২), মো. তুহিন (২৭), মো. মোক্তার হোসেন প্রকাশ মোক্তার (৩৬) ও মো. আবির হোসেন (১৪)। এসময় তাদের কাছ থেকে দুইটি ছুরি উদ্ধার করা হয়েছে বলে জানিয়েছে পুলিশ।

কোতোয়ালী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ মহসীন বলেন, ঈদকে সামনে রেখে সক্রিয় হয়েছে এসব ছিনতাইকারী চক্র। শপিং করতে আসা মানুষকে টার্গেট করে টাকা ও জিনিসপত্র ছিনিয়ে নেওয়ার জন্য সুযোগের অপেক্ষায় থাকে তারা। এমনই গোপন সংবাদের ভিত্তিতে নতুন রেল স্টেশন এলাকায় অভিযান চালিয়ে ৪ ছিনতাইকারীকে গ্রেফতার করা হয়েছে। এসময় তাদের কাছ থেকে ২টি ছুরি উদ্ধার করা হয়েছে। ছিনতাইসহ অপরাধমূলক কর্মকাণ্ড ঠেকাতে কাজ করছে পুলিশ বলে জানান তিনি।

বায়েজিদ বোস্তামী থানা বিভিন্ন জায়গায় অভিযান চালিয়ে মঙ্গলবার (২৮ মে) দিবাগত রাতে দুই ছিনতাইকারীকে গ্রেফতার করেছে।

গ্রেফতারকৃতরা হলেন- মোঃ হৃদয় (২০)। সে লক্ষীপুর জেলার জালাল আহম্মদ মাষ্টারের বাড়ীর মোঃ আবু তাহেরের ছেলে। অপরজন হলো- মোঃ জুয়েল (২১)। সে মৌলভীবাজার জেলার দুলাল মিয়ার বাড়ীর মৃত দুলাল মিয়ার ছেলে। এ সময় তাদের কাছ থেকে ১টি দামা ও ০১টি চাপাতি উদ্ধার করা হয়।

এদিকে, নগরীর সদরঘাট থানার তালিকাভুক্ত ছিনতাইকারী ও একাধিক মামলার আসামীকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। সোমবার (২৭ মে) রাত ১০ টার দিকে দেশীয় তৈরি চাপাতি ও ইয়াবা ট্যাবলেট সহ তাকে গ্রেফতার করা হয়। গ্রেফতারকৃতের নাম- মোঃ ওসমান গণি রিপন(৩০)। সে চট্টগ্রামের সদরঘাট থানার বাচুনির মার বাড়ীর নুর মোহাম্মদের ছেলে।

সদরঘাট থানার এসআই মোঃ আব্দুল খালেক বলেন, গ্রেফতারকৃত আসামীর বিরুদ্ধে চট্টগ্রাম মহানগরীর বিভিন্ন থানায় একাধিক অস্ত্র ও মাদক মামলা রয়েছে। প্রাথমিকভাবে স্বীকার করে যে, রমজান মাসে ব্যস্ততম মার্কেটের সামনে বিভিন্ন লোককে টার্গেট করে টাকা ও স্বর্ণালংকার ছিনতাই করে। সে মহানগরীর তালিকা ভুক্ত পেশাদারী ছিনতাইকারী। নগরীর বিভিন্ন জায়গা ছিনতাই করে এবং ছিনতাইকারী চক্রের বাকি সদস্যদের গ্রেফতারের চেষ্টা অব্যাহত আছে।

এছাড়াও, মঙ্গলবার (২৮ মে) রাত সাড়ে ১২ টার দিকে নগরীর কোতোয়ালি থানাধীন সিআরবি কাঠের বাংলোর দক্ষিন পাশের রাস্তার উপর বিশেষ অভিযান পরিচালনা করে ২টি ছোরা ও ১টি চাপাতি সহ ৩ আসামীকে গ্রেফতার করেছে মহানগর গোয়েন্দা (উত্তর) বিভাগ।

গ্রেফতারকৃতরা হলেন- মোঃ আনোয়ার হোসেন মনা (৩৫), মোঃ হানিফ (২০) ও মোঃ মাইনুদ্দিন কালু (২৮)। আনোয়ার নোয়াখালী জেলার নাবালক মিয়ার বাড়ির মৃত জালাল মাঝির ছেলে। হানিফ কুমিল্লা জেলার মুরাদনগরের মোঃ জাহাঙ্গীর আলমের ছেলে এবং মাইনুদ্দিন কুমিল্লা জেলার মুরাদনগরের মৃত কনু মিয়ার ছেলে।

চট্টগ্রাম মহানগর গোয়েন্দা (উত্তর) বিভাগের উপ-পুলিশ কমিশনার জনাব মোঃ মিজানুর রহমান বলেন, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে কোতোয়ালি থানাধীন সিআরবি কাঠের বাংলোর দক্ষিন পাশের রাস্তার উপর অভিযান পরিচালনা ২টি ছোরা ও ১টি চাপাতি সহ ৩ ছিনতাইকারীকে গ্রেফতার করা হয়।

তিনি জানান, প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে গ্রেফতারকৃত আসামীরা রমজান মাসে বিভিন্ন ব্যবসায়ীরা দোকান বন্ধ করে ঘটনাস্থল এলাকায় হয়ে যাওয়ার পথে তাদের টাকা পয়সা ছিনতাই করে থাকে এবং দীর্ঘদিন যাবৎ চট্টগ্রাম মহানগরীর বিভিন্ন এলাকায় ছিনতাই করে আসছে বলে স্বীকার করে। তাদের বিরুদ্ধে কোতোয়ালী থানায় নিয়মিত মামলা রুজু করা হয়েছে বলে জানান তিনি।

বাংলাধারা/এওফএস/এমআর/টিএম

আরও পড়ুন