১৩ জুলাই ২০২৪

কোয়ার্টার ফাইনালে আর্জেন্টিনা

সেই মাঠে চিলিকে হারিয়ে আর্জেন্টিনার প্রতিশোধ

যুক্তরাষ্ট্রের নিউ জার্সির মেটলাইফ স্টেডিয়াম—২০১৬ কোপা আমেরিকার ফাইনালে এই মাঠেই চিলির বিপক্ষে টাইব্রেকারে স্বপ্নভঙ্গ হয়েছিল আর্জেন্টিনার। সেই ম্যাচ শেষে আচমকাই অবসরের ঘোষণা দেন লিওনেল মেসি। যদিও পরবর্তীতে অবসর ভেঙে ফিরে নিজের ক্যারিয়ারকে সমৃদ্ধ করেন তিনি। তবুও এই স্টেডিয়ামটি আর্জেন্টাইনদের কাছে দুঃস্বপ্নের। এবার সেই স্টেডিয়ামেই চিলিয়ে হারিয়ে পুরনো প্রতিশোধ নিল লিওনেল স্কালোনির শিষ্যরা। পাশাপাশি নিশ্চিত করল নকআউট পর্ব।

বুধবার (২৬ জুন) গ্রুপ ‘এ’এর দ্বিতীয় ম্যাচে মাঠে নামে চিলি ও আর্জেন্টিনা। ১-০ গোলের জয় পায় আর্জেন্টিনা। দলের হয়ে একমাত্র গোলটি করেন লাউতারো মার্টিনেজ। প্রথম ম্যাচে কানাডার বিপক্ষে স্বস্তির জয়ের পর এই ম্যাচেও সেই ধারাবাহিকতা ধরে রাখার লক্ষ্য নিয়ে ৪-৪-২ ফরমেশনে মাঠে নামে মেসিরা। বল দখলে আধিপত্য ধরে রাখলেও শুরুতে সংঘবদ্ধ আক্রমণ করতে পারেনি আর্জেন্টিনা। ম্যাচের ২২তম মিনিটে গোলের দারুণ সুযোগ পেয়েছিলেন হুলিয়ান আলভারেজ। তবে, বাঁ দিকে দিয়ে নিকো গঞ্জালেজের বাড়ানো বলে শট করলেও চিলির গোলরক্ষককে ফাঁকি দিতে পারেননি তিনি। ডানদিকে লাফিয়ে দলকে বাঁচান ব্রাভো।

এরপর ২৬তম মিনিটে ফের একবার ডি-বক্সের বাইরে থেকে ডি পল গড়ানো শট করলেও তা গোলের জন্য যথেষ্ঠ ছিল না। ৩০তম মিনিটে আরও একটি সুযোগ পেয়েছিলেন নিকো গঞ্জালেজ। তবে, এবার তার হেড ফাঁকি দিতে পারেনি ব্রাভোকে। ম্যাচের ৩৫তম মিনিটে ডি পলের বাড়ানো বলে ডি-বক্সের বেশ খানিকটা দূর থেকে মেসির দ্রুতগতির শট একটুর জন্য জালের দেখা পায়নি। এযাত্রায়ও হতাশ হতে হয় সমর্থকদের।

এরপর ৩৭তম মিনিটে বড় ভুল করতে বসেছিল চিলি। মলিনার ক্রস থেকে দলকে রক্ষা করতে গিয়ে উল্টো নিজেদের জালে বল জড়িয়ে দেওয়ার মতো পরিস্থিতি তৈরি করে চিলির রক্ষণভাগ। বাকি সময়ে আর তেমন কোনো আক্রমণ না হওয়ায় খালি হাতেই বিরতিতে যেতে হয় দু’দলকে। বিরতির পর ফিরে আক্রমণের ধার বাড়ালেও গোলের দেখা পাচ্ছিল না আর্জেন্টিনা। ম্যাচের ৬১তম মিনিটে গোলের আরও একটি সুবর্ণ সুযোগ পেয়েছিল আর্জেন্টিনা। বাঁ প্রান্ত দিয়ে নিকো গঞ্জালেজের বাঁ পায়ের জোরালো শট ব্রাভোর হাতে লেগে গোলপোস্টে লাগলে হতাশ হতে হয় সমর্থকদের।

৭২তম মিনিটে সুযোগ পেয়েছিল চিলিও। তবে তাদের সেই চেষ্টা সফল হতে দেননি আর্জেন্টাইন গোলরক্ষক এমিলিয়ানো মার্টিনেজ। একই ঘটনার পুনরাবৃত্তি ম্যাচের ৭৫তম মিনিটে। এবারও চিলির সামনে বাধা হয়ে দাঁড়ান এমি। তার দক্ষতার সঙ্গে পেরে ওঠেনি চিলির আক্রমণভাগ। একের পর এক আক্রমণের সুবাদে ম্যাচের ৮৭তম মিনিটে মেসির কর্ণার থেকে কাঙ্খিত সেই গোল করে দলকে এগিয়ে নেন লাউতারো মার্টিনেজ। তার গোলেই ১-০ ব্যবধানের জয় নিয়ে মাঠ ছাড়ে আলবিসেলেস্তারা। যদিও অতিরিক্ত সময়ে আরও একটি গোলের সুযোগ পেয়েছিলেন মার্টিনেজ। তবে, হাস্যকর ভুলে সেই সুযোগ হাতছাড়া করেন তিনি।

আরও পড়ুন